সমাপনী পরীক্ষা না হলে ওয়ার্কশিটে মূল্যায়ন

শিক্ষা বার্তা

 292 total views

প্রাথমিক সমাপনী পরীক্ষা নেওয়া সম্ভব না হলে শিক্ষার্থীদের ওয়ার্কশিট যাচাই করে মূল্যায়ন করা হবে বলে জানিয়েছেন প্রাথমিক ও গণশিক্ষা প্রতিমন্ত্রী মো. জাকির হোসেন। তবে, স্বাস্থ্যবিধি মেনে স্কুল খুলে সরকার শিক্ষার্থীদের সমাপনী পরীক্ষা নিতে চায় বলেও জানিয়েছেন তিনি। মঙ্গলবার (২৪ আগস্ট) দুপুরে সচিবালয়ে সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবে তিনি এসব কথা বলেন।

প্রতিমন্ত্রী বলেন, স্কুলগুলো বন্ধ থাকলেও আমাদের অনলাইন-অফলাইনে শিক্ষা কার্যক্রম চলছে। আমাদের ইচ্ছা আছে স্কুলগুলো খোলার। স্কুলগুলো খুলতে পারলে আমরা স্বাস্থ্যবিধি মেনে পরীক্ষা নিতে চাই।

 

তিনি আরও বলেন, সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়গুলো খোলার জন্য আমরা প্রস্তুতি নিয়েছি। স্কুলগুলো পরিস্কার পরিচ্ছন্ন করা হয়েছে। আমাদের শিক্ষকরা স্কুলের যাচ্ছেন। আমরা অনলাইন ও অফলাইনে শিক্ষা কার্যক্রম চালাচ্ছি। সংসদ টিভিতে ক্লাস হচ্ছে। স্কুল বন্ধ থাকলেও আমাদের শিক্ষার্থীদের পাঠদান চলছে। তাদের ওয়ার্কশিট দেওয়া হচ্ছে। প্রধানমন্ত্রী নির্দেশনা দিলে আগামীকাল থেকেই আমরা সরকারি প্রাইমারি স্কুলগুলো খুলতে পারি। স্কুল খোলার সব প্রস্তুতি আমাদের আছে। এ মুহূর্তে পরিস্থিতি পর্যবেক্ষণ করা হচ্ছে।

প্রাথমিক সমাপনী পরীক্ষা হবে কিনা জানতে চাইলে প্রতিমন্ত্রী বলেন, আমাদের শিক্ষার্থীদের ওয়ার্কশিট দিচ্ছি। শিক্ষার্থীরা সপ্তাহে সপ্তাহে ওয়ার্কশিট জমা দিচ্ছে। যদি পরীক্ষা নেওয়া না যায় তাহলে ওয়ার্কশিটের মাধ্যমে শিক্ষার্থীদের মূল্যায়ন করা হবে।

পরীক্ষার বিষয়ে জাকির হোসেন বলেন, সংক্ষিপ্ত পাঠ্যসূচির চিন্তা–ভাবনা করা হচ্ছে। সেটা সমাপনীতেও ব্যবহার হবে। কে কীভাবে কী করল, তার মূল্যায়নের ভিত্তিতে রেজাল্ট দেওয়া হবে। সশরীর পরীক্ষা যদি নিতে না পারা যায়, তাহলে মূল্যায়নের ভিত্তিতে ফল দেওয়া হবে। স্কুল খুলতে পারলে পরীক্ষা নেওয়া হবে। সেপ্টেম্বরে খুলতে পারলেও প্রস্তুতি আছে, অক্টোবরে খুলতে পারলেও প্রস্তুতি আছে। ওয়ার্কসিট দেওয়া হচ্ছে সিলেবোস অনুযায়ী, এটিও একটি মূল্যায়ন। এটি দেওয়ার কারণে সারা দেশে শিক্ষার্থীদের সঙ্গে শিক্ষকদের সম্পৃক্ততা রয়েছে। করোনা পরিস্থিতি অস্বাভাবিক থাকলে গতবারের মতো মূল্যায়ন করা হবে।

স্কুল কবে খুলবে এ প্রশ্নের জবাবে প্রতিমন্ত্রী বলেন, স্কুল খোলার জন্য সরকারের উচ্চ পর্যায়ের নির্দেশানা লাগবে। এখন যে পরিস্থিতি হুট করে স্কুল খোলা যায় না। মাননীয় প্রধানমন্ত্রী, মন্ত্রিপরিষদ, স্বাস্থ্য বিশেষজ্ঞরা সবাই মিলে সিদ্ধান্ত নেবেন। স্কুল খোলার বিষয়ে আমাদের সব প্রস্তুতি আছে। মাননীয় প্রধানমন্ত্রী যদি আজকে নির্দেশনা দেন আমরা আগামীকাল থেকেই স্কুল খুলতে প্রস্তুত আছি। প্রতিমন্ত্রী বলেন, আল্লাহ যদি রহমত করেন আমরা খুব দ্রুত স্কুল খুলো দেবো। আপনারা জানেন ইতোমধ্যে মাননীয় প্রধানমন্ত্রী স্কুল খোলার ব্যবস্থা নিতে নির্দেশনা দিয়েছেন।

 

তিমন্ত্রী বলেন, বিজ্ঞজনরা স্কুল খোলার বিষয়ে মত দিচ্ছেন। দীর্ঘ দেড় বছর ধরে আমাদের বাচ্চারা স্কুলে যেতে পারছে না। তারা নানা ধরণের কর্মকাণ্ডে যুক্ত হচ্ছে। অনলাইনেও আমাদের কিছু ডিস্টার্ব হচ্ছে। শিক্ষার্থীরা বিভিন্ন বাজে গেমের সাথে জড়িয়ে পড়েছে। আমার এলাকার বাচ্চারাতো সারাদিন খেলাধুলায় মত্ত। স্কুল বন্ধ থাকায় প্রত্যন্ত চরাঞ্চলে বাল্য বিবাহ বেড়েছে উল্লেখ করেন প্রতিমন্ত্রী। স্কুল বন্ধ থাকায় চরাঞ্চলের ছাত্রীদের বিয়ে দেওয়ার প্রবণতা আছে বলেও উল্লেখ করেন তিনি।

 

 

শেয়ার করুনShare on Facebook
Facebook
Pin on Pinterest
Pinterest
Tweet about this on Twitter
Twitter
Share on LinkedIn
Linkedin
Print this page
Print
Email this to someone
email

Leave a Reply

Your email address will not be published.